বঙ্গবন্ধুর খুনি নূরকে ফেরাতে শুনানি শুরু কানাডার আদালতে

42

বাংলা কাগজ ডেস্ক: জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি পলাতক নূর চৌধুরীর অবস্থান জানতে এবং তাকে ফেরত পাঠাতে কানাডার আদালতে করা মামলার শুনানি শুরু হয়েছে। বাংলাদেশ সময় গত সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে দেশটির ফেডারেল আদালতে এ শুনানি শুরু হয়। গত বছরের ৬ জুলাই মামলাটি করা হয়। কানাডায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।
কানাডায় পলাতক বঙ্গবন্ধুর খুনি নূর চৌধুরীর শরণার্থীসংক্রান্ত একটি আবেদন ২০০৪ সালে খারিজ করে দেন দেশটির আদালত। ওই আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করা হলে ২০০৭ সালে নিম্ন আদালতের আদেশ বহাল রাখেন উচ্চ আদালত। এর পর নূরকে দেশে ফেরাতে গত বছর কানাডার ফেডারেল আদালতে মামলা করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুর রহমান প্রিন্স।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১২ জনের মধ্যে ২০১০ সালে পাঁচজনের সাজা কার্যকর হয়। জিম্বাবুয়েতে পলাতক থাকাকালীন মারা যায় খুনি আজিজ পাশা। অন্যদের মধ্যে খুনি রাশেদ চৌধুরী বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয়ে আছে। তাকে ফেরত আনার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা চলমান। এ ছাড়া খুনি আবদুর রশিদ পাকিস্তান, শরিফুল হক ডালিম লিবিয়ায় এবং রিসালদার মোসলেহউদ্দিন আহমেদ জার্মানিতে আছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আর খুনি আবদুল মাজেদের অবস্থানের বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
হাইকমিশন সূত্রে জানা যায়, নূর চৌধুরী বর্তমান স্ট্যাটাস সম্পর্কে তথ্য দিতে কানাডা সরকারকে বাধ্য করতে ফেডারেল কোর্ট অব জাস্টিসের আদালতে আবেদন করা হয়। টরন্টোর টোরি ল ফার্ম বাদীপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করছে। এর আগে অটোয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মিজানুর রহমান নূর চৌধুরীর ‘প্রি রিমুভ্যাল রিস্ক এসেসমেন্ট’-এর তথ্য জানতে চেয়ে ইমিগ্রেশন মন্ত্রী আহমেদ হোসেনের কাছে একটি চিঠি লিখেন। কিন্তু মন্ত্রী তাকে সেই তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানান। কানাডায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের আশা, শুনানি শেষে নূর চৌধুরীর অবস্থান জানা যাবে এবং দেশে ফেরত এনে সাজা কার্যকরের প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হবে।

শেয়ার করুন