মনোজ্ঞ পরিবেশে উদযাপিত হল বিশ্ব-নারী দিবস

11

৩০শে মার্চ, ২০১৯- পার্কভিউ হলে এক মনোজ্ঞ পরিবেশে উদযাপিত হল বিশ্ব-নারী দিবস। সুধীজনের উপস্থিতি সম্রিদ্ধ করেছে মন্ট্রিয়ালের নারীদের ব্যতিক্রমধর্মী এই আয়োজন।
এই আয়োজনের মুখ্য ভূমিকায় ছিলেন ইশরাত আলম- সাংস্কৃতিক এবং বুদ্ধিভিত্তিক অঙ্গনে যার সরব পদচারণা বহুদিন ধরে। সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন: শাকিলা শারমিন; লাভলী চৌধুরী; সাজিয়া আফরিন; লিলি চৌধুরী এবং মারজান বেগম।
ইশরাত আলমের প্রাণবন্ত এবং আলোচনা ভিত্তিক উপস্থাপনায় পরিপূর্ণতা পায় নারীদিবসের এই আয়োজন। অনুষ্ঠানের শুরুতে সঙ্গীত পরিবেশন করেন মিলি ইসলাম, যার সুরেলা কণ্ঠ দর্শকদের মুগ্ধ করে নেয়। কবিতা আবৃত্তি ও সঙ্গীত পরিবেশন করেন নাজনীন নিশা।
নারী দিবসের উত্পত্তি এবং অন্যান্য আনুপ্রাষঙ্গিক দিক নিয়ে জোড়াল বক্তব্য রাখেন প্রফেসর এবং সোশ্যাল ওয়ার্কার ফাতেমা আক্তার। দর্শকদের মন জয় করে নেয় সাফিনা করিমের সঙ্গীত পরিবেশন ও কবিতা আবৃত্তি।
শুভেচ্ছা বক্তব্য এবং স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন আইনজীবী এবং সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ববিতা বিশ্বাস। মমচিত্তে গীতিনৃত্যে-গানের সাথে নৃত্য পরিবেশন করেন সাজিয়া আফরিন- যা কিনা মধুময় করেছে আয়োজন প্রাঙ্গণ।
অনুষ্ঠানে কবিতা পাঠ করেন ডঃ মোতালিব এবং তার স্ত্রী হিলারি রবিনসন। “আমার মা” কবিতা আবৃত্তির মাধ্যমে অনুষ্ঠানে নিশ্ছিদ্র নিরবতা বয়ে আনেন আফাজ উদ্দিন তোতন। কবিতা আবৃত্তি করেন সামশাদ রানা। এতদিন ধরে সাংস্কৃতিক অঙ্গনে বিশেষ অবদানের জন্য তাকে একটি কলম উপহার দেন শাকিলা শারমিন এবং ইশরাত আলম।
আয়োজনের প্রধান চমক ছিল দেবপ্রিয়া কর রুমার গান। জাগো নারী জাগো বহিশিখা, সঙ্গে স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনা এবং নারি দীবসের সাথে সম্পৃক্ত “আমি চিত্রাঙ্গদা”, রবি ঠাকুরের এই গানটি এবং রুমার কন্ঠ পুলকিত করে নেয় দর্শক হৃদয়। ইশরাত আলমকে উৎসর্গ করে “বধুঁয়া আমার চোখে জল এনেছে” সহ ব্যান্ড সঙ্গীত সবাইকে সুরের জগতে আচ্ছন্ন করেছে।
অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন: আমজাদ হোসেন, রায়হান ইবনে হোসেন, এবং আলি আহমেদ। তাদের সমর্থন সূচক বক্তব্য অনুষ্ঠানে এক নতুন মাত্রা যোগ করেছে।
নারী অধিকার নিয়ে আমাদের পরবর্তী প্রজন্মের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন অর্পিতা অধিকারী। নৃত্য পরিবেশন করেন রিয়া এবং মারিশা।
সমগ্র আয়োজন জুড়ে লক্ষ্যণীয় ছিল, অনেক নতুন প্রতিভার উন্মোচন। আমরা একজন নতুন উপস্থাপিকা পেয়েছি শাকিলা শারমিন, আশা করছি আগামীতেও তাকে আমরা দেখতে পাব। সাজিয়া আফরিনের লুকায়িত প্রতিভা এবং মেহরুন নাহারের মত চমৎকার কন্ঠের আবৃত্তি শিল্পীদের উপহার দিতে পেরেছি।
ডঃ ফারাহ হোসেন, সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নারী এবং পুরুষদের উপস্থিতি অনুষ্ঠানের পুরো আয়োজনকে সার্থক করে তুলেছে। আশা করছি ইশরাত আলম আগামীতেও এমনি ব্যাতিক্রমধর্মী অনুষ্ঠান আমাদের উপহার দেবেন।
বিশেষ সহযোগিতায় রিয়েল এস্টেট এজেন্ট মোমিন ভুইয়া, কামাল চৌধুরী, রোমেল, ফারুক আহমেদ, শরীফ উল্লাহ, আমজাদ হোসাইন। পর্যাপ্ত পরিমাণে সুস্বাদু খাবার পরিবেশনায় এলেন হেলাল ও সাজ্জাদ হোসাইন সুইট।

শেয়ার করুন