ফিলিপাইনের জালে ১০ গোল বাংলাদেশের

9

স্পোর্টস ডেস্ক : এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাই পর্বের দ্বিতীয় রাউন্ডে উড়ন্ত সূচনা করেছে বাংলাদেশের মেয়েরা। মিয়ানমারের মান্দালয়ের মান্দালার থিরি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এই আসরে ফিপিপাইনের জালে দশ গোল দিয়েছে মারিয়া-তহুরারা। বিশাল এ জয়ে ৩ গোল করেছেন স্ট্রাইকার তহুরা খাতুন। দুটি করে গোল করেছেন শামসুন্নাহার জুনিয়র ও আনুচিং। সিনিয়র শামসুন্নাহার, নীলা ও মারিয়া মান্ডা করেছেন একটি করে গোল। ফিলিপাইনের বিপক্ষে বিশাল এই জয়ে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপ চূড়ান্ত পর্বের পথে কিছুটা হলেও এগিয়ে গেল বাংলাদেশ দল। চার দলের গ্রুপে চ্যাম্পিয়ন হলে তো কথাই নেই, রানার্সআপ হলেও পাওয়া যাবে চূড়ান্ত পর্বের টিকিট, চলতি বছর সেপ্টেম্বরে যা অনুষ্ঠিত হবে থাইল্যান্ডে। চূড়ান্ত পর্বে অপেক্ষায় আছে স্বাগতিক থাইল্যান্ড, গত আসরের চ্যাম্পিয়ন উত্তর কোরিয়া, রানার্সআপ দক্ষিণ কোরিয়া ও তৃতীয় হওয়া জাপান।
এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপ বাছাইপর্বের দ্বিতীয় ধাপে এত ভালো শুরুর আশা করেনি হয়তো বাংলাদেশ।
মাঠে নামার আগে বাংলাদেশের জন্য বড় এক ধাঁধার নাম ছিল ফিলিপাইন। কারণ এর আগে ফিলিপাইনের সঙ্গে কোনো পর্যায়েই খেলার অভিজ্ঞতা ছিল না বাংলাদেশের মেয়েদের। অচেনা এই প্রতিপক্ষকে নিয়েই গতকাল খেলেছেন তহুরা খাতুন, মারিয়া মান্দারা। প্রথমার্ধে ছয় গোলের পর দ্বিতীয়ার্ধে আরো চার গোল! সব মিলিয়ে ফিলিপাইনের বিপক্ষে ১০-০ গোলের বিশাল এই জয়ের ম্যাচে হ্যাটট্রিক করেছেন তহুরা খাতুন। তহুরা হ্যাটট্রিকের শুরুটা করেন ১৭ মিনিটে। মারিয়ার বাড়ানো বলে প্রতিপক্ষ দলের আগুয়ান গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে বল জালে জড়ান ময়মনসিংহের এই ফরোয়ার্ড। যদিও এর আগেই ম্যাচের দুই মিনিটেই গোলের খাতা খোলেন শামসুন্নাহার সিনিয়র। ম্যাচের ১৮ মিনিটে তৃতীয় গোল করেন শামসুন্নাহার জুনিয়র। মিনিট ছয়েক পরেই দারুণ এক হেডে নিজের দ্বিতীয় ও দলের চতুর্থ গোল করেন তহুরা খাতুন। ম্যাচের ৩৭তম মিনিটে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন তরুরা। শামসুন্নাহার সিনিয়রের ক্রসে প্লেসিং শটে গোল করেন এই হ্যাটট্রিক কন্যা। ৪১ মিনিটে দলের ষষ্ঠ ও নিজের দ্বিতীয় গোল করেন বড় শামসুন্নাহার। দ্বিতীয়ার্ধেও ক্ষুরধার আক্রমণে ফিলিপাইনকে ব্যতিব্যস্ত রাখে বাংলাদেশ। বিরতির পর দ্বিতীয় মিনিটে নিলুফার ইয়াসমিন নীলার গোলে স্কোর হয় ৭-০। ৫৮ মিনিটে আনুচিং মোগিনি করেন অষ্টম গোল। অধিনায়ক মারিয়াও গোলদাতার খাতায় নাম লিখেন ৬৪ মিনিটে। তার ডান পায়ের জোরালো শটে নবমবার প্রতিপক্ষের জালে বল জড়ায় বাংলাদেশ।
ম্যাচ শেষ হওয়ার ৬ মিনিট আগে আনুচিং ফিলিপাইনের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন। ‘বি’ গ্রুপের দ্বিতীয় ম্যাচে স্বাগতিক মিয়ানমারকে বাংলাদেশ মোকাবিলা করবে আগামীকাল। মারিয়াদের আসল পরীক্ষা হবে চীনের বিপক্ষে। গ্রুপের শেষ ম্যাচটি হবে রোববার। উল্লেখ্য, গত সেপ্টেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত বাছাইয়ের প্রথম পর্বে বাহরাইন, লেবানন, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ভিয়েতনামকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে দ্বিতীয় পর্বের টিকিট পায় লাল-সবুজ জার্সিধারী মেয়েরা। ম্যাচ শেষে ফিলিপাইনের কোচ ম্যানিলা রেনিটি বলেন, বাংলাদেশ খুবই ক্ষিপ্র গতির একটি দল। মনিকা, মারিয়া ও গোলরক্ষক রূপনা চাকমা খুবই ভালো খেলোয়াড়। দলের রক্ষণভাগও ভালো। পুরো ম্যাচেই তারা আমাদের ওপর প্রভাব দেখিয়েছে। বাংলাদেশ ফাইনাল রাউন্ডে যাওয়ার দাবিদার।
জয় শেষে বাংলাদেশ দলের কোচ গোলাম রব্বানি ছোটন বলেন, আমি দলের নৈপুণ্যে খুবই খুশি। পুরো ম্যাচেই তারা ইতিবাচক ফুটবল খেলেছে। ম্যাচের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত একতালে খেলাটা সহজ নয়। ফাইনাল রাউন্ডে খেলাটা আমাদের লক্ষ্য।

শেয়ার করুন