কবি আল মাহমুদ ছিলেন সমকালিন সময়ের বাংলা সাহিত্যের সর্বশ্রেষ্ঠ কবি

13

মুহাম্মদ নূরুল ইসলাম, ফ্রান্সের প্যারিস থেকে: “সমকালীন বাংলা সাহিত্যের প্রধান কবি” সদ্য প্রয়াত কবি আল মাহমুদ স্মরণে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে আয়োজিত স্মরণসভায় এভাবে কবিকে স্মরণ করেন আলোচকরা।

শুক্রবার (১ মার্চ) বিকেলে কবি আল মাহমুদ স্মরণসভা উদযাপন কমিটি ফ্রান্সে এ স্মরণ সভার আয়োজন করে।

নজরুল গবেষক খোরশেদ আলম পাটোয়ারীর সভাপতিত্বে ও আবৃত্তিকার মাহবুব হোসাইনের উপস্থাপনায় স্মরণসভায় আলোচনা করেন বাংলাদশ থেকে ভিডিও কনফারেন্সে খ্যাতিমান কবি আসাদ চৌধুরী, কবি জাকির আবু জাফর, ফ্রান্স প্রবাসী মিডিয়া ব্যক্তিত্ব সুস্ময় শরীফ, ফ্রসে আভেক রাব্বানীর সত্ত্বাধিকারী কৌশিক রাব্বানী, বিশিষ্ট সংগঠক সাংবাদিক মুহাম্মদ নূরুল ইসলাম, সাংবাদিক কামরুজ্জামান, ফজলুর রহমান, খান আল মামুন আলোচনায় অংশ নেন ।

আলোচকগণ বলেন, কবি আল মাহমুদ ছিলেন ভাষা সৈনিক, মুক্তিযোদ্ধা, কবি, সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও বরেণ্য ব্যক্তিত্ব । তিনি ছিলেন সমসাময়িক বাংলা সাহিত্যের প্রধান কবি। কবি আল মাহমুদ ছিলেন বাংলাদেশের মানুষের হৃদয়ের কবি। তিনি এ দেশের মাটি ও মানুষের কথা বলেছেন । তার বিশ্বাস ও সাহিত্যকর্ম উভয়টিই আমাদের দেশের অমূল্য সম্পদ। তিনি চিরকাল বেঁচে থাকবেন এদেশের মানুষের মনে। তারা বলেন, কবি আল মাহমুদ কবিতার মাধ্যমে নিজের জাত চিনিয়েছেন।

আলোচকগণ বলেন, একজন কবি আল মাহমুদ এর চলে যাওয়া, বাংলা সাহিত্যে একধরনের শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে; যা কখনোই পুরন হবার নয়। বাংলা সাহিত্যে তাঁর অবদান অাকাশচুম্বী । কবি তাঁর লেখনির ভেতর দিয়ে দেশের সকল মানুষের কাছে চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

কবি আল মাহমুদ একজন কবি, ঔপন্যাসিক, প্রাবন্ধিক, ছোটগল্প লেখক, শিশু সাহিত্যিক এবং সাংবাদিক ছিলেন। কবি আল মাহমুদ আধুনিক ভাষা কাঠামোর ভেতরে আঞ্চলিক শব্দের প্রয়োগ ঘটিয়ে তিনি হয়ে উঠেছিলেন বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি। বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে সক্রিয় থেকে যিনি আধুনিক বাংলা কবিতাকে নতুন আঙ্গিকে, চেতনায় ও বাকভঙ্গিতে বিশেষভাবে সমৃদ্ধ করেছেন। অনুষ্ঠানে আলোচনা শেষে গান, কবিতা পাঠ ও দোয়া মুনাজাত করা হয়।

শেয়ার করুন