রাতারাতি সেলিব্রেটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক

7

বাংলা কাগজ ডেস্ক : উত্তর চীনের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ঝাং পেংফেই (৪০)। তিনি এখন সর্বশেষ ইন্টারনেট সেলিব্রেটিতে পরিণত হয়েছেন। প্রতিদিন তিনি সকালে স্কুলের শিক্ষার্থীদের নিয়ে চমৎকার এক নাচ চর্চা করেন এবং তাদেরকে দিয়ে তা করান। সঙ্গে সঙ্গে তিনি নিজে গান পরিবেশন করেন। তার সঙ্গে তালে তালে ছন্দময় এক নাচ উপহার দিতে দেখা যায় কোমলমতি শিশুদের। এ ঘটনাটি শানসি প্রদেশের লিনিইর। সেখানকার সি গুয়ান প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষক ঝাং পেংফেই। প্রতিদিন সকাল হতেই তিনিস্কুলের খেলার মাঠে ডেকে নেন প্রায় ৭০০ শিক্ষার্থী শিশুকে।
তাদেরকে জাজ সঙ্গীতের আদলে শেখান নান। এ সময় হিল, পায়ের বুড়ো আঙুল আর বাহু সঞ্চালন করে সৃষ্টি করেন এক দৃষ্টিনন্দন আবহ। ঝাং পেংফেই মনে করেন, শিক্ষার্থীদেরকে এই চর্চা করানোর ফলে তারা এতে মজা পাবে এবং একই সঙ্গে তাদের কর্মশক্তি বৃদ্ধি পাবে। মোবাইল নিয়ে বসে থাকার চেয়ে এটাকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন তিনি।
তার নাচের ক্লাশ ৩০ মিনিটের। তার এই নিয়মিত নাচের ক্লাস এখন সরকারি একটি প্রোগ্রামের স্থান দখল করেছে। ১৯৫১ সাল থেকে চীনের প্রতিটি প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও জুনিয়র স্কুলে বাধ্যতামূলক ছিল সংক্ষিপ্ত এক ব্যায়ামের কর্মসূচি। সেই কর্মসূচি সম্প্রচার করা হতো টেলিভিশনে। সেই স্থানটি এখন দখল করেছেন ঝাং পেংফেই। তার এই কর্মসূচি বা নাচের ক্লাশে শিক্ষার্থীরা শরীরকে স্ট্রেচিং বা শরীরের অলসতা দূর করে শরীরকে প্রসারিত করা, জাম্পিং ও বাঁকা করে। রেকর্ড করা একটি নির্দেশনার অধীনে তারা এসব করে। এতে শিক্ষার্থীদের শক্তি, কর্মক্ষমতা ও শারীরিক ফ্লেক্সিবিলিটি উন্নত হয়। সাউদার্ন মেট্রোপলিস নিউজকে ঝাং পেংফেই বলেছেন, আমার মনে হয়েছে যে পরিবর্তন প্রয়োজন। কারণ, যে ব্যায়ামের প্রোগ্রাম সম্প্রচার করা হয় তার প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলছিল শিক্ষার্থীরা। তাই আমি নতুন কিছু চিন্তা করি। এরই অংশ হিসেবে গত গ্রীষ্মে আমি একটি সরকারি ভবনে কিছু লোককে নিয়ে এমন একটি ক্লাসের আয়োজন করি। সিদ্ধান্ত নিই সেখানে আমিই তাদেরকে নাচ শিখাবো। মনে হয়েছিল, যদি শরীর চর্চায় নাচকে বেছে নেয়া হয় তাহলে তা শিশুদের কাছে আকর্ষণীয় হবে। গান হলো শক্তিতে ভরপুর। এতে সত্যিই এক স্বস্তিকর অনুভূতি এনে দেয়।
গত অক্টোবরে তিনি তার সব শিক্ষার্থীর জন্য কোরিওগ্রাফি ক্লাসের নির্দেশনা দেন। নিয়মিত এভাবে কিছুদিন করেন। এমনকি তাতে শিক্ষক ও স্কুলের স্টাফরা পর্যন্ত যোগ দেন। ঝাং পেংফেই বলেন, এর ফলে শিক্ষার্থীরা আগের মতো তাদের মোবাইল ফোন নিয়ে একটানা পড়ে থাকে না। তাদেরকে মাঝে মাঝেই আমি দেখি মোবাইল ফোনে ভিন্ন ভিন্ন রকম নাচের ভিডিও দেখছে। নতুন সব নাচ শিখছে।
তার এমন ক্লাসের গত ৯ই জানুয়ারির ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ হয়েছে। তাতে শক্তিমাণ এই প্রধান শিক্ষককে নাচতে দেখা যাচ্ছে। তার সঙ্গে নাচছে তারই শিক্ষার্থীরা। ছোট্ট ছোট্ট শিশুদের এতে নাচার সময় হাসতে দেখা যায়। আর শিক্ষক ঝাং পেংফেইয়ের হাতে দেখা যায় মাইক। তাতে তিনি গান গাইছেন বা শিশুদের সঙ্গে উল্লাস করছেন। তাদেরকে মাতিয়ে রাখছেন। তার এই ভিডিওটি চীনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দ্রুত ভাইরাল হয়ে যায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ওয়েইবোতে এটি প্রকাশ হয় ‘প্রিন্সিপাল লিডস স্টুডেন্টস ইন ঘোস্ট ড্যান্স রুটিন’ শিরোনামে। তা এরই মধ্যে ২৫ কোটি মানুষ দেখেছে। ওয়েইবো বলেছে, শিশুদের জন্য একটি চমৎকার বিনোদন বলে দ্রুত হয়তো মানুষ এটা গ্রহণ করেছে। এই প্রধান শিক্ষক অত্যন্ত চমৎকার, ঠান্ডা মাথার ভাল মানুষ। একজন ওয়েইবো ব্যবহারকারী লিখেছেন, যদি আমি তার কাছে শিক্ষা নিতে পারতাম। তিনি অবশ্যই একজন গ্রেট শিক্ষক।

শেয়ার করুন