রুবেলই যাবেন, তবে…

53

স্পোর্টস ডেস্ক: শনিবার দলের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকাতে যেতে পারেননি জাতীয় দলের পেসার রুবেল হোসেন। দক্ষিণ আফ্রিকার ইমিগ্রেশন থেকে নিরাপত্তার ছাড়পত্র না আসায় এমিরেটসের বিমানে চড়তে দেয়া হয়নি রুবেলকে। এরপর থেকে বিষয়টি অনেকটা গোপনীয়তার মধ্যেই ছিল। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ও রুবেল হোসেনের পক্ষ থেকে কোনো কিছু জানা যায়নি সোমাবার দুপুর পর্যন্ত। তবে মঙ্গলবার বিভিন্ন সূত্রে গোপন থাকা বিষয়টি চলে আসে সংবাদ পত্রে। এরপরই মুখ খোলেন বিসিবি’র ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান আকরাম খান। রুবেল হোসেন দক্ষিণ আফ্রিকাতে কেন যেতে পারছেন না? এ বিষয়ে আকরাম জানান ‘রুবেল হোসেন’ নামের এক বাংলাদেশি দক্ষিণ আফ্রিকার ইমিগ্রেশনে কালো তালিকাভুক্ত। সেই ব্যক্তির নামের সঙ্গে রুবেলের জন্মতারিখও মিলে যাওয়ায় জটিলতা তৈরি হয়েছে। তবে দুই-একদিনের মধ্যে জটিলতা কেটে যাবে আশা করে আকরাম বলেন, ‘দুই-একদিনের মধ্যেই ছাড়পত্র পেয়ে যাবেন রুবেল এবং দলের সঙ্গে  যোগ  দেবেন।’ মূলত শনিবার দু’টি ভাগে ভাগ হয়ে দল যায় দক্ষিণ আফ্রিকাতে। সন্ধ্যা সাতটায় অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম, তাসকিন আহমেদ, শফিউল ইসলাম, মুমিনুল হকদের সঙ্গে যাওয়ার কথা ছিল রুবেলের। তবে সবাই বিমানে চাপলে হতাশা নিয়েই বাসায় ফিরতে হয় দেশের আলোচিত-সমালোচিত এই পেসারকে।
রুবেল হোসেনের এরই বিড়ম্বনার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে আকরাম খান বলেন, ‘হয়তো আরও দুই-একদিন সময় লাগবে। ওর জন্মতারিখ নিয়ে একটা ঝামেলা হয়েছে, ভুলটা কিন্তু শ্রীলঙ্কায় ওদের ভিসা অফিস থেকে হয়েছে। ওরা খুবই চেষ্টা করছে। হয়তো এক-দুইদিনের মধ্যে সুরাহা হয়ে যাবে। এটা একটা মিসটেক হয়েছে। দুইদিন সাউথ আফ্রিকার দূতাবাস বন্ধ ছিল। গতকাল কাজ শুরু হয়েছে, আজ বা কালকের মধ্যেই ব্যাপারটা সুরাহা হয়ে যাবে।’
তবে প্রশ্ন  উঠেছে শেষ পর্যন্ত যদি রুবেল হোসেনকে নিয়ে এই জটিলতা শেষ না হয়। যদি রুবেল যেতে না পারেন তাহলে তার বিকল্প হবেন কে? আকরাম খান রুবেলের বিকল্পের কথা একেবারেই উড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘এটা তো সুরাহা হতেই হবে। ও তো আমাদের দলের গুরুত্বপূর্ণ একজন খেলোয়াড়। তাকে বাংলাদেশের দরকার আছে। এমন একটি ভুলের কারণে বাইরে থাকতে হবে- এটা  তো হতে পারে না।’
দক্ষিণ আফ্রিকার কোনো ভিসা প্রসেসিং সেন্টার বাংলাদেশে নেই। যে কারণে ক্রিকেটার থেকে শুরু করে সবার ভিসা করাতে হয় শ্রীলঙ্কা থেকে। তবে সমস্যাটা তৈরি হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকাতে। সেখানেই ইমিপ্রেশনে যে ‘রুবেল হোসেন’ নামের ব্যক্তি কালো তালিকাভুক্ত তার নামের সঙ্গে রুবেল হোসেনের জন্ম মিলে যাওয়াতে তার নিরাপত্তা ছাড়পত্র দেয়নি দক্ষিণ আফ্রিকার ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ।
এই নিয়ে বিসিবি থেকে প্রোটিয়া ক্রিকেট বোর্ড ও দূতাবাসের সঙ্গে জোর যোগাযোগ করা হয়েছে জানিয়েছেন বিসিবি’র মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমাম। তবে গতকাল এই রিপোর্ট খেলা পর্যন্ত রুবেল হোসেনের বিষয়ে কোনো সুখবর পায়নি তারা। গতকাল সন্ধ্যা ছ’টার দিকে বিসিবি’র সিইও নিজামুদ্দিন চৌধুরী সুজনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি মুঠোফোনে মানবজমিনকে বলেন, ‘আমরা  চেষ্টা করছি রুবেলের সমস্যা সমাধানের। আমরা দক্ষিণ অফ্রিকা বোর্ডের সঙ্গেও যোগাযোগ করেছি। তবে এখন পর্যন্ত সেখান থেকে কিছু জানানো হয়নি। আমরা বিভিন্নভাবেই চেষ্টা করে যাচ্ছি।‘ তিনি বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি। সমাধান  যে কোনো সময়ই হয়ে যেতে পারে। একটু তো অপেক্ষা করতেই হবে।’ যাকে নিয়ে এমন জটিলতা সেই রুবেল হোসেনও এ বিষয়ে মুখ খুলতে রাজি হননি।
দক্ষিণ আফ্রিকায় পৌঁছে এক দিন বিশ্রামের পর বেনোনির সাহারা উইলোমুর পার্ক মাঠে সোমবার অনুশীলন করেছে বাংলাদেশ দল। দলের সঙ্গে  যোগ দিয়েছেন বিশ্ব একাদশের হয়ে পাকিস্তানে খেলতে যাওয়া তামিম ইকবাল ও ইংল্যান্ডে হাই-পারফরম্যান্স দলের সঙ্গে থাকা শুভাশিস রায়। কাল বেনোনির মাঠেই দক্ষিণ আফ্রিকা আমন্ত্রিত একাদশের বিপক্ষে তিনদিনের প্রস্তুতি ম্যাচ  খেলবে বাংলাদেশ। এই প্রস্তুতি ম্যাচটি ছিল রুবেলের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ সম্প্রতি দেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তিনি ছিলেন না। যে কারণে তার জন্য অনেকটা পরীক্ষা দিয়ে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে মাঠে নামাতে হতো। প্রস্তুতি ম্যাচে ভালো করতে পারলে দক্ষিণ আফ্রিকার পেস বান্ধব উইকেটে অভিজ্ঞ এই পেসারের জায়গা পাওয়াটা সহজ হতো। আজ-কালের মধ্যে তার জটিলতা না কাটলে প্রস্তুতি ম্যাচে খেলার কোনো সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।

শেয়ার করুন