করোনার বিপর্যয় : মাঠভরা তরমুজ, ক্রেতা নেই

0
48
Sponsor Advertisement

অনলাইন ডেস্ক : ধান আবাদে উপর্যুপরি লোকসান, সম্ভাবনা দেখে শুরু করেছিলেন তরমুজ আবাদ কিন্তু তাতেও এত বড় বিপর্যয়! প্রাণঘাতী করোনার কারণে আবার ভয়াবহ ধাক্কা, এত বড় বিপর্যয় কিভাবে কাটাবেন তা জানেন না পটুয়াখালীর কলাপাড়ার চাষিরা। বছরের এই সময়ে বাজার ভরে যাওয়ার কথা তরমুজে কিন্তু এবার সবকিছু পাল্টে দিয়েছে করোনা। ক্রেতা নেই তাই তরমুজ নিতেও আসে না ব্যাপারীরা। মাঠেই নষ্ট হচ্ছে বহু কষ্টে আর অনেক টাকায় ফলানো তরমুজ। এ অঞ্চলের লাভজনক ফসল হিসেবে তরমুজ চাষ বেশ পরিচিত। এ এলাকার মাটি তরমুজ চাষের উপযোগী হওয়ায় বেশি লাভের আশায় তরমুজ চাষ করেন চাষিরা। ধান ও অন্যান্য ফসলের লোকসানের ধকল পোষাতে এবার আবাদ করেছিলেন আরো বেশি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে তরমুজ আবাদ হয়েছে। মাঘ মাসের শুরুতে চাষিরা তরমুজ চাষ শুরু করেন। মৌসুমের শুরুতে বৃষ্টিতে কিছু জমির তরমুজ নষ্ট হলেও পরে আর ক্ষতির সম্মুখিন হননি চাষিরা। এ কারণে এবার তরমুজের ফলন বেশ ভালো হয়েছে বলে দাবি করেছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর।

সরেজমিন উপজেলার ধুলাসার, ধানখালী, বালিয়াতলী, লতাচাপলী ও চাকামইয়া ইউনিয়ন ঘুরে দেখা যায় বিস্তীর্র্ণ এলাকাজুড়ে শুধু তরমুজক্ষেত। দুই-তিন কেজি সাইজের এই তরমুজ আর কয়েক দিনের মধ্যে বিক্রি করা যাবে কিন্তু করোনার কারণে পাইকার না আসায় বড় ধরনের লোকসানের মুখে চাষিরা। প্রতিবার তরমুজ মৌসুমে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে থেকে পাইকাররা এসে জমি থেকে কিনে নিয়ে যান ট্রাক ট্রাক তরমুজ। এখানকার তরমুজ যেত যশোর, মাগুরা, চাঁদপুর, মানিকগঞ্জ, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়। বিশেষ করে রাজধানী ঢাকায় ‘কুয়াকাটার তরমুজ’ নামে কলাপাড়ার তরমুজের বিশেষ খ্যাতি ছিল। কাকডাকা ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত তরমুজ তোলা ও বাজারজাতকরণের কাজে ব্যস্ত থাকতেন চাষিরা। বেলে-দোআঁশ মাটি তরমুজ চাষের জন্য উপযোগী হওয়ায় অন্য জেলায় উৎপাদিত তরমুজের চেয়ে এখানকার তরমুজ মিষ্টি বেশি, টকটকে লাল ও চামড়া পাতলা হওয়ায় সবার প্রিয়।

কৃষকরা বেশি লাভের আশায় ব্যাংক ও এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে দ্বিগুণ হারে তরমুজের চাষাবাদ করেছেন। শেষ পর্যন্ত করোনার কারণে খরচের টাকার অর্ধেকটাই ওঠে কিনা তা নিয়ে চিন্তিত তারা। ধানখালী ইউনিয়নে পাঁচজুনিয়া গ্রামের তরমুজ চাষি মোহাম্মদ সান্টুমাল বলেন, মাঘ মাসের শুরুতে তরমুজ চারা রোপণ করি কিন্তু মৌসুমের শুরুতে বৃষ্টি হওয়ায় তরমুজ চারা নষ্ট হয়ে যায়। আবার চারা রোপণ করি। আর পাঁচ-সাত দিনের মধ্যে ক্ষেত থেকে তরমুজ তুলতে হবে কিন্তু দেশের যে অবস্থা তাতে তরমুজ বিক্রি করতে পারি কি না তা আল্লাহ রাব্বুল আলামিন ভালো জানেন। এনজিওর কাছ থেকে ঋণ নিয়ে তরমুজ চাষ করছি। এখন বিক্রি করতে না পারলে রাস্তায় বসা ছাড়া কোনো উপায় দেখি না।

কলাপাড়া উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আবদুল মান্নান জানান, করোনার কারণে তরমুজচাষিরা বড় ধরনের বিপাকে পড়েছেন। তাদের ক্ষেতে উত্পাদিত তরমুজ পাকলেও বাজারজাত করতে পারছেন না। মৌসুমের শুরুতে বুলবুলের কারণে কৃষকের কিছুটা ক্ষতি হয়েছে, এখন আবার করোনার কারণে বড় ধরনের লোকসানের মুখে তারা। তাদেকে পরামর্শ দেয়া হয়েছে যে প্রতিদিন ক্ষেতে পানি দিলে তরমুজ কম পাকে। পানি দেয়া বন্ধ করলে অল্পতে তরমুজ পেকে যাবে। ৪ তারিখ পর্যন্ত লোকজন বাজারে আসতে পারবে না, দেখা যাক তারপর পরিস্থিতি কী হয়।

Sponsor Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here